ফাঁড়ী ও তদন্তকেন্দ্র

সদর ফাড়ীঃ

সদর ফাড়ী গাইবান্ধা জেলা শহরের ডেভিড কোম্পানী পাড়ায় মৌজা নং-৯৯, সিএস খতিয়ান নং-১৫৫২, ১৫৫৩, দাগ নং-১৬৬ এবং হাল দাগ নং-১৫২২,১৫২৩ ও ১৫২৪ ভুক্ত বাংলাদেশ গেজেট অর্পিত শাখায় ডিপি  ক শাখার তালিকা ৩০, ৪৮, ১৬৬, ৪৫৬ তে বর্ণিত ১৬৬ দাগে মোট জমির পরিমাণ ০.৫১ শতক । উক্ত ০.৫১ শতক জমির মধ্যে ডিপি কেস নং-৬৩/৭৬-১১ মূলে  পুলিশ সুপার, গাইবান্ধার নামে ০.১৩ শতক জমির কাগজপত্র গত ১০/১০/২০১৩ খ্রিঃ তারিখে এবং ইজারা কেস নং-২১৩/৮৫ মূলে .০৯ শতক জমির কাগজপত্র গত ২৬/০৫/২০১৪ খ্রিঃ তারিখে পুলিশ সুপার, গাইবান্ধা বরাবর হস্তান্তর করা হয় । উভয় কেসে মোট জমির পরিমাণ (০.১৩+০.৯) শতক= ০.২২ শতক । উভয় কেস মূলে প্রাপ্ত ০.২২শতক জমির কাগজপত্র পুলিশ সুপার, গাইবান্ধা বরাবর হস্তান্তর করা হলেও বর্তমানে পুলিশের দখলে রয়েছে ০.১৫ শতক জমি । বাকী ০.৭ শতক জমি জনৈক  শাহ্ মোঃ মাসুদ জাহাঙ্গীর কবির মিলন, পিতা-মৃত জাহাঙ্গীর কবির ও শ্রী উজ্জ্বল কুমার দত্ত, পিতা-মৃত শংকর কুমর দত্তদের দখলে রয়েছে বলে জানা যায় । উক্ত জমি তাদের দখল হতে উদ্ধার করে  পুলিশ বিভাগের দখলে নেয়ার জন্য জেলা প্রশাসক, গাইবান্ধা বরাবরে আবেদন পত্র দাখিল করা হয়েছে।

অত্র পুলিশ ফাঁড়িতে সরকারীভাবে অনুমোদিত অফিসার ও ফোর্সের সংখ্যা যথাক্রমে ০১ জন পুলিশ পরিদর্শক, ০১ জন এসআই, ০১ জন টিএসআই, ০১ জন এএসআই, ০১ জন এটিএসআই এবং ১৫ জন কনষ্টেবল। বিন্যাস তালিকা পর্যালোচনা করে দেখা যায় যে, অত্র পুলিশ ফাঁড়িতে বর্তমানে ০১ জন নিরস্ত্র পুলিশ পরিদর্শক, ০১জন টিএসআই, ০১ জন এএসআই, ০৩ জন এটিএসআই ও ১০ জন কনষ্টেবল কর্মরত আছেন। বর্তমানে ১৬ জন অফিসার ও ফোর্স অত্র ফাঁড়িতে কর্মরত আছেন। অনুমোদিত সংখ্যার চেয়ে ০২ জন এটিএসআই অতিরিক্ত কর্মরত আছেন এবং ০১ জন এসআই ও ০৫ জন কনষ্টেবলের পদ শূন্য আছে ।


হরিণাবাড়ী পুলিশ তদন্ত কন্দ্রেঃ


 স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় স্মারক নং-স্বঃমঃ/তদন্ত-৯৯/২০০০(পুঃ-৩)/৮৭০, তাং-২৫/১১/২০০১ খ্রিঃ এবং পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স, ঢাকার স্মারক নং- আরএন্ডএম/২৮-৯৬/১৪২৩, তাং-২৬/১১/২০০১ খ্রিঃ মূলে গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী থানাধীন (০১) ০৭ নং পবনাপুর (০২) ০৮ নং মনোহরপুর এবং (০৯) ০৯ নং হরিনাথপুর এই ০৩(তিন) টি ইউনিয়নের সমন্বয়ে হরিণাবাড়ী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র স্থাপিত হয়েছে।    গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী থানাধীন ০৯ নং হরিনাথপুর ইউনিয়নের অন্তর্গত হরিণাবাড়ী মৌজার জেএল নং- ৭৮, খতিয়ান নং-২৮৬, দাগ নং-৩৯২ হতে ০.১৬ একর ও দাগ নং- ৩৯৫ হতে ১.২০ একর জমি জনৈক আলহাজ্ব মোজাম্মেল হক মিয়া কর্তৃক এবং জনৈক খলিলুর রহমান, ফজল হক, মছির উদ্দিন, আজিজুল হক, আনছার আলী ও আয়েজ উদ্দিনগন কর্তৃক ০.১০ একরসহ মোট ১.৪৬ একর জমি পুলিশ বিভাগের নামে দান রেজিষ্ট্রি মূলে এবং ১.১৫ একর জমি অধিগ্রহণ মূলে সর্বমোট ২.৬১ একর জমি হরিণাবাড়ী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের নিজস্ব সম্পত্তি।   অত্র হরণিাবাড়ী পুলশি তদন্তকন্দ্রেে সরকারীভাবে অনুমোদিত অফিসার ও ফোর্সের সংখ্যা যথাক্রমে ০১ জন পুলিশ পরিদর্শক, ০২ জন এসআই, ৩ জন এএসআই, এবং১৬ জন কনষ্টেবল, ড্রাইভার কনস্টেবল ০১ জন, বাবুর্চি ০১ জন, পরছিন্নতার্কমী ০১ জন। অত্র পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে বর্তমানে ০৫ (পাঁচ) জন কনস্টেবল এর পদ শূন্য আছে


বামনডাঙ্গা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রঃ


গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ থানাধীন ১নং বামনডাঙ্গা, ২নং সোনারায়, ৬নং সর্বানন্দ, ৭নং রামজীবন এবং ৮নং ধোপাডাঙ্গা মোট ০৫ (পাঁচটি) ইউনিয়নের সমন্বয়ে বামনডাঙ্গা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র স্থাপিত হয়েছে। তদন্ত কেন্দ্রের সরকারি কাজে ব্যবহারের জন্য একটি সরকারি পিক-আপ ভ্যান আছে। তদন্ত কেন্দ্রে বেতার যোগাযোগ ব্যবস্থা এবং সরকারী মোবাইল আছে।   অত্র তদন্ত কেন্দ্রে সরকারি ভাবে মঞ্জুরিকৃত অফিসার ও ফোর্সের সংখ্যা পুলিশ পরিদর্শক (নিঃ) ০১ জন, এস. আই, ০২(দুই) জন, এ. এস. আই ০২(দুই) জন এবং কনস্টেবল ১৬(ষোল) জন। বর্তমানে পুলিশ পরিদর্শক (নিঃ) ০১(এক) জন, এস আই(নিঃ) ০১ (এক) জন, এ. এস. আই(নিঃ) ০৪(চার) জন, কনস্টেবল ১১ (এগার) জন কর্মরত আছে।   বর্তমানে ০১(এক) জন এস আই(নিঃ)  ও  ০৫ (পাঁচ) জন কনস্টেবলের পদ শূন্য আছে। এবং ০২ জন এএসআই অতিরিক্ত আছে। তাছাড়া অত্র তদন্ত কেন্দ্রে আউট সোর্সিং এর মাধ্যমে নিয়োজিত ০১ জন বাবুর্চি ও ০১ জন পরিচ্ছনতাকর্মী নিয়োজিত আছে।

বৈরাগীরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র  


গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ থানাধীন ১নং কামদিয়া, ২নং কাটাবাড়ী, ৩নং শাখাহার, ৪নং রাজাহার, ৫ নং সাপমারাসহ মোট-০৫টি ইউনিয়নের সমন¦য়ে বৈরাগীরহাট তদন্ত কেন্দ্র স্থাপিত হয়েছে। অত্র তদন্ত কেন্দ্র হতে থানা ও ইউপি এলাকা সমূহের যোগাযোগ ব্যবস্থা ভাল। তদন্ত কেন্দ্রে টেলিফোন যোগাযোগ ব্যবস্থা নেই। শুধু বেতার যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে ।   স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় স¥ারক নং-১১৫(৭৬) স¦ঃমঃ/পি-২/পি-১২৯৩(পুলিশ-৪)(অংশ-১) তারিখ-১২-০২-৯৬ খ্রিঃ এবং পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স ঢাকার স¥ারক নং-আরএন্ডএম/৭৮-৯৩(অংশ-১)/ ২০০৩ (১৮) তারিখ-০৪/০৩/৯৬ খ্রিঃ মোতাবেক গোবিন্দগঞ্জ থানাধীন ৫নং সাপমারা ইউনিয়নের অন্তর্গত কোগারিয়া মৌজাস্থিত ৬নং খতিয়ানভুক্ত ১১১৪ নং দাগে মোট-১.০০ একর জমি অধিগ্রহণ করে বৈরাগীরহাট তদন্ত কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে।    অত্র তদন্ত কেন্দ্রে সরকারীভাবে অনুমোদিত অফিসার ও ফোর্সের সংখ্যা যথাক্রমে ০১ জন পুলিশ পরিদর্শক, ২জন এসআই ,০৩ জন এএসআই এবং ১৬ জন কনস্টেবল। বিন্যাস তালিকা পর্যালোচনায় দেখা যায় যে, বর্তমানে ০১ জন পুলিশ পরিদর্শক, ০৩ জন এসআই, ০৩ জন এএসঅই এবং ১০ জন  কনষ্টেবল কর্মরত আছেন। তন্মধ্যে ০১ জন ড্রাইভার হিসেবে কর্মরত আছেন। অনুমোদিত সংখ্যার চেয়ে ০৭ জন কনষ্টেবলের পদ শূন্য আছে।

বোনারপাড়া পুলিশ তদন্ত কন্দ্রেঃ


স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, পুলিশ অধিশাখা-০৩ এর স¥ারক নং-আরএন্ডএম/১৪৫-২০০৫/১২৮০তারিখ-৩০/১১/২০১০ খ্রিঃ মূলে গাইবান্ধা জেলার সাঘাটা থানাধীন (১) ১নং পদুমশহর, (২) ৫নং কচুয়া, (৩) ৯নং কামালের পাড়া এবং (৪) ১০নং বোনারপাড়া এই ০৪টি ইউনিয়নের সমন¦য়ে বোনারপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র স্থাপিত হয়েছে । তদন্ত কেন্দ্র এলাকার যাতায়াত ব্যবস্থা মোটামুটি ভাল ।   অত্র তদন্ত কেন্দ্রের কার্যক্রম অস্থায়ীভাবে সাঘাটা থানাধীন শিমুলতাইড় মৌজায় এসএ খতিয়ান নং ২৭৮, জেএলনং-১৬, দাগ নং-২৯৩ তে .১১ শতক অর্পিত জমিতে অবস্থিত একটি টিনসেড বিল্ডিংয়ে তদন্ত কেন্দ্রের কার্যক্রম চলছে । উক্ত জমি তদন্ত কেন্দ্রের অফিস, স্টাফ কোয়ার্টার নির্মাণের জন্য যথেষ্ট না হওয়ায় গত ২৭/১১/২০০৮খ্রিঃ তারিখে সাঘাটা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য, এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সমন¦য়ে বোনারপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র স্থাপনের বিষয়ে  জরুরী সভার সিদ্বান্তের প্রেক্ষিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, সাঘাটা এর স¥ারক নং-উনিঅ/সা/০৮/১৩৩৮ তারিখ-২৭/১১/০৮ খ্রিঃ মূলে শিমুলতাইড় মৌজায় খতিয়ান নং-৩৮.১১১.১৯২.২২৭.০১. দাগ নং-২১৩, ২১৪, ২১৫, ২২০, ২২৮, ২৪৯, ২৭২  ভুক্ত ২.০৭ একর জমিতে উপজেলা নির্মাণের জন্য অধিগ্রহণ করা হয় । উক্ত জমিতে বোনারপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র স্থাপনের জন্য সভায় উপস্থিত সকলে একমত পোষণ করেন।   অত্র তদন্ত কেন্দ্রে সরকারীভাবে অনুমোদিত অফিসার ও ফোর্সের সংখ্যা যথাক্রমে  ০১জন রিস্ত্র পুলিশ পরিদর্শক, ০২ জন এসআই, ০২ জন এএসআই এবং ১৬ জন কনষ্টেবল । বিন্যাস তালিকা পর্যালোচনা করে দেখা যায় যে, অত্র তদন্ত কেন্দ্রে বর্তমানে  ০১জন নিরস্ত্র পুলিশ পরিদর্শক, ০১ জন এসআই, ০২ জন এএসআই এবং কম্পিউটার চালকসহ ১১ জন কনষ্টেবল কর্মরত আছেন ।   অনুমোদিত সংখ্যার চেয়ে বর্তমানে ০১জন এসআই ও ০৫ জন কনষ্টেবলের পদ শূণ্য আছে ।  বিষয়টি পুলিশ সুপার, গাইবান্ধা মহোদয়ের নিকট উপস্থাপন করে উক্ত শূণ্য পদ পূরণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আর,ও-১,পুলিশ লাইন্স, গাইবান্ধাকে নির্দেশ প্রদান করা হলো।

ধাপেরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র


গাইবান্ধা জেলার সাদুল্যাপুর থানাধীন ৬নং ধাপেরহাট, ৭নং ইদিলপুর ও ১১নং খোর্দ কোমরপুর এ তিনটি ইউনিয়নের সমন¦য়ে ধাপেরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র স্থাপিত হয়েছে। অত্র তদন্ত কেন্দ্রের সহিত ইউপি এলাকা সমূহে যাতায়াত ব্যবস্থা মোটামুটি ভাল। তবে বর্ষাকালে কাঁচা রাস্তাগুলোতে যাতায়াত ব্যবস্থা অনেকটা দূর্বিষহ। অত্র তদন্ত কেন্দ্রে টেলিফোন যোগাযোগ ব্যবস্থা নেই । মোবাইল ও বেতার যোগাযোগ ব্যবস্থা আছে ।   স¦রাষ্ট্র মন্ত্রণালয় স¥ারক নং-স¦ঃমঃ/পু-৩/তদন্ত-১১/২০০৪/২৩৫ তারিখ-১৮/০৩/০৫ এবং পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স ঢাকার স¥ারক নং-আরএন্ডএম/২৫-২০০৩/৬৫৭(৩) তারিখ-২৫/০৪/০৫খ্রিঃ মোতাবেক গাইবান্ধা জেলার সাদুল্যাপুর থানাধীন ৩টি ইউনিয়নের সমন¦য়ে ধাপেরহাট পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র  স্থাপিত হয়েছে । অত্র তদন্ত কেন্দ্রের জন্য সরকারীভাবে জমি অধিগ্রহণ,  ভূমি ও ইমারত নির্মাণ করা হয়নি । ধাপরহাট বন্দরের হাসানপাড়া মৌজায় জে,এল, নং-১২৬, খতিয়ান নং-১, দাগ নং-৭ ও ২৬ এর ৯৯ শতক অব্যবহৃত/পরিত্যক্ত ১নং খাস খতিয়ানের জমি পুলিশ বিভাগের নামে হস্তান্তর করার জন্য পুলিশ অফিস, গাইবান্ধা স¥ারক নং-১১৯৮/ই, তারিখ-২২/০৫/০৫ খ্রিঃ মূলে জেলা প্রশাসক, গাইবান্ধাকে অনুরোধ করা হয়েছে ও উক্ত বিষয়টি ডিআইজি, রংপুর রেঞ্জ, রংপুর মহোদয় এবং এআইজি (এষ্টেট এন্ড ডেভেলপমেন্ট), বাংলাদেশ পুলিশ, পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স, ঢাকা মহোদয়কে অবহিত করা হয়েছে।   অত্র তদন্ত কেন্দ্রে সরকারীভাবে মঞ্জুরীকৃত অফিসার ও ফোর্সের সংখ্যা যথাক্রমে ০১জন পুলিশ পরিদর্শক, ০২জন এসআই, ০২জন এএসআই, ১৬জন কনষ্টেবল, ১জন পরিচ্ছন্নতাকর্মী ও ১জন বাবুর্চী। বিন্যাস তালিকা পর্যালোচনা করে দেখা যায়  বর্তমানে অত্র তদন্ত কেন্দ্রে ০১ জন পুলিশ পরিদর্শক, ০২ জন এসআই, ০২জন এএসআই, ১৭ কনষ্টেবল, ০১জন বাবুর্চী ও ১জন পরিচ্ছন্নতা কর্মী কর্মরত আছেন । এসএএফ হতে ১জন কম্পিউটার অপারেটর ও ২ জন ড্রাইভার কনষ্টেবল কর্মরত আছেন ।  বর্তমানে কোন পদ শুন্য নেই ।

কঞ্চিবাড়ী পুলিশ তদন্ত কন্দ্রেঃ


স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় স্মারক নং-স্বঃমঃ/তদন্ত-৫৭৫(২) সঃবিঃ/১২/৯৩/(পুলিশ) (৪) (অংশ) তারিখ-০৭/০৮/১৯৯৬ খ্রিঃ মূলে গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ থানাধীন (১) ৯ নং ছাপরহাটি (২) ১০ নং শান্তিরাম (৩) ১১ নং হরিপুর (৪) ১২ নং কঞ্চিবাড়ী (৫) ১৩ নং শ্রীপুর (৬) ১৪ নং চন্ডিপুর এবং (৭) ১৫ নং কাপাসিয়া এই ০৭(সাত) টি ইউনিয়নের সমন্বয়ে কঞ্চিবাড়ী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র স্থাপিত হয়েছে। অত্র তদন্ত কেন্দ্র হতে জেলা শহরে যাতায়াত ব্যবস্থা মোটামুটি ভালো।   অত্র তদন্ত কেন্দ্রের ভূমি ও ইমারত সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় কাগজপত্রাদি ফাইলে সংরক্ষন করা হচ্ছে। তবে ভূমি ও ইমারত সংক্রান্তে কোন রেজিস্টার নেই।   পুলিশ পরিদর্শক (নিরস্ত্র) ০১ জন, এসআই (নিরস্ত্র) ০২ জন, এএসআই (নিরস্ত্র) ০২জন, কনস্টেবল ১৬ জন, ড্রাইভার কনস্টেবল ০১ জন, বাবুচি ০১ জন।